Potato Harvest Looks Really Good So Far

Last evening I started the annual rite of hot weather-induced misery known as digging the potatoes. I'm not fond of digging in hot weather, but I was in the shadier end of the garden in the evening hours so it wasn't too bad. I dug the raised bed that was planted earliest, and it mostly had Red Norland in it. The harvest from the Red Norland potatoes was really outstanding, with several large potatoes and a bunch of smaller ones under almost every plant. It was the kind of harvest where you look at the pile of freshly-dug potatoes and say "Wow!". I am excited about the great harvest. In one small portion of that raised bed, there were 6 leftover Norkotah plants that didn't fit in the bed where the rest of the Norkotah plants are located. Norkotah has issues. I'm not sure it is a failure on the part of the variety itself, though. A couple of weeks ago I found a vole mound in the pathway right beside the area where the Norkotah plants were planted. I said "uh oh" and figured that they had been eating potatoes. Apparently they had been eating Norkotah potatoes. From six Norkotah plants, I got only 4 potatoes. Directly beneath those plants, there's a large maze of underground tunnels. So, in areas where the voles weren't doing their own harvesting, the yield is high. In areas where they beat me to the potatoes, the yield is low. Overall, though, it appears the potatoes benefitted from the late cold weather and the heavy rainfall. Is anyone else digging potatoes yet?


We've dug a few to eat as early potatoes, but ours are still lush and green and blooming, so no major harvest yet. It is usually the first week in July before ours die down and may be even later this year if the potatos come off as late as every thing else did. I still have peas in the garden tho most of what is producing are the MMSs that I mentioned not being fond of. But they are there so I will put up one more batch. The SSS are mostly gone. There are still beets on the south side of the pea trellis and I keep hoping they will make something. This is the worst year I've had for beets in years. Even worse than last year when it got too hot too soon. I don't know what ate the first planting when they were two inches tall, but they sure didn't leave me much...and the second planting was just too late, despite the cool spring.
পোস্টটি করেছেন:- Deep Roy Moulick On Thursday, January 01, 1970

Yep, the potato harvest has commenced here. So far there have been very good yields. The only problem has been that it is about to exhaust me. I planted 450 pounds of seed potatoes and have been digging furiously over the past few days to get them out of the ground before the heat effects some of them. Some still have quite a bit of green foliage. They will come out of the ground this next week. I planted Red Lasoda, Yukon Gold, and Pontiac.
পোস্টটি করেছেন:- Deep Roy Moulick On Monday, March 03, 2014

Potato Harvest

Last evening I started the annual rite of hot weather-induced misery known as digging the potatoes. I'm not fond of digging in hot weather, but I was in the shadier end of the garden in the evening hours so it wasn't too bad. I dug the raised bed that was planted earliest, and it mostly had Red Norland in it. The harvest from the Red Norland potatoes was really outstanding, with several large potatoes and a bunch of smaller ones under almost every plant. It was the kind of harvest where you look at the pile of freshly-dug potatoes and say "Wow!". I am excited about the great harvest. In one small portion of that raised bed, there were 6 leftover Norkotah plants that didn't fit in the bed where the rest of the Norkotah plants are located. Norkotah has issues. I'm not sure it is a failure on the part of the variety itself, though. A couple of weeks ago I found a vole mound in the pathway right beside the area where the Norkotah plants were planted. I said "uh oh" and figured that they had been eating potatoes. Apparently they had been eating Norkotah potatoes. From six Norkotah plants, I got only 4 potatoes. Directly beneath those plants, there's a large maze of underground tunnels. So, in areas where the voles weren't doing their own harvesting, the yield is high. In areas where they beat me to the potatoes, the yield is low. Overall, though, it appears the potatoes benefitted from the late cold weather and the heavy rainfall. Is anyone else digging potatoes yet?


কৃষিক্ষেত্রের সাফল্য

দেশের কৃষি জমি ক্রমান্বয়ে হ্রাস পেলেও ধানসহ খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ চমক সৃষ্টি করেছে। এক সময় মান্ধাতার আমলের পদ্ধতিতে এদেশে চাষাবাদ হতো। সে পশ্চাৎপদতা কাটিয়ে কৃষিতে আধুনিকায়নের ছোঁয়া লেগেছে। বাংলাদেশের কৃষক এখন ব্যবহার করছে কলের লাঙ্গল এবং ট্রাক্টর। ধান মাড়াইয়েও ব্যবহৃত হচ্ছে আধুনিক প্রযুক্তি। উন্নতমানের বীজ, সার এবং সেচ বাংলাদেশের কৃষির অনুষঙ্গে পরিণত হয়েছে। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের জনসংখ্যা বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। বাড়তি জনসংখ্যার প্রয়োজনে এ সময়ে বাসস্থান, স্কুল-কলেজ, হাট-বাজার, কলকারখানা এবং অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণে চাষাবাদের জমি ১৮ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। তবে এ সময়ে শুধু চালের উৎপাদন বেড়েছে ৩ দশমিক ১৬ গুণ। একই সময়ে গমের উৎপাদন বেড়েছে ১২ দশমিক ২৫ গুণ। ভুট্টা উৎপাদন ৭৫৭ গুণ। আলুর উৎপাদন বেড়েছে ১০ দশমিক ১১ গুণ। একদিকে জনসংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি হয়ে যাওয়া, অন্যদিকে জনপ্রতি খাদ্যগ্রহণের পরিমাণ বৃদ্ধি পেলেও হেক্টরপ্রতি ধানের উৎপাদন তিনগুণের বেশি বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো চাল রফতানিকারক দেশে পরিণত হয়েছে। ধান উৎপাদনে দেশের পরিশ্রমী কৃষকদের কৃতিত্ব যেমন অনস্বীকাযর্, তেমনি ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের অধিক ফলনশীল বিভিন্ন জাতের ধানও অবদান রাখছে। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে এবং কৃষি খাতের উন্নয়নে সরকারের নানামুখী পদক্ষেপে দেশে খাদ্যশস্যের উৎপাদন প্রতি বছর বাড়ছে। সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপ এবং কৃষি খাতের উন্নয়নে সরকারের দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ফলে গত ৮ বছরের ব্যবধানে দেশে খাদ্যশস্য উৎপাদন বেড়েছে ৩০ দশমিক ৪৮ শতাংশ। খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এ কথা জানা গেছে। সব জাতের ধান, গম ও ভুট্টার উৎপাদনে ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে। আর খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়ায় দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ রাষ্ট্রে পরিণত করার পাশাপাশি ভবিষ্যতে খাদ্যশস্য রফতানিকারক দেশে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, দেশে ২০০৬-০৭ অর্থবছরে মোট খাদ্যশস্যের উৎপাদন হয়েছিল ২৮৯ দশমিক ৫৪ লাখ মেট্রিক টন। ২০০৭-০৮ অর্থবছরে তা বেড়ে ৩১১ দশমিক ২১ লাখ মেট্রিক টনে দাঁড়ায়। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে উৎপাদন হয় ৩২৮ দশমিক ৯৬ লাখ মেট্রিক টন, ২০০৯-১০ অর্থবছরে উৎপাদন হয়েছে ৩৪১ দশমিক ১৩ লাখ মেট্রিক টন, ২০১০-১১ অর্থবছরে উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ৩৬০ দশমিক ৬৫ লাখ মেট্রিক টন, ২০১১-১২ অর্থবছরে উৎপাদন হয়েছে ৩৬১ দশমিক ৮২ লাখ মেট্রিক টন, ২০১২-১৩ অর্থবছরে উৎপাদনের পরিমাণ ৩৭২ দশমিক ৬৬ লাখ মেট্রিক টন। আর ২০১৩-১৪ অর্থবছরে খাদ্যশস্য উৎপাদনের পরিমাণ বেড়েছে ৩০ শতাংশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্যানুযায়ী, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে খাদ্যশস্যের মোট উৎপাদন হয়েছে ৩৭৭ দশমিক ৮২ লাখ মেট্রিক টন, যা আগের অর্থবছরের (২০১২-১৩) চেয়ে ৫ দশমিক ১৬ মেট্রিক টন বেশি। বর্তমানে দেশের মোট ৭৫ ভাগ জমিতে ব্রি-ধানের চাষ হয় এবং এ থেকে দেশের মোট ধান উৎপাদনের শতকরা ৮৫ ভাগ আসে। ১৯৭০-৭১ সালে দেশে মোট উৎপাদিত ধানের পরিমাণ ছিল ১ কোটি ১০ লাখ টন। চলতি বছর উৎপাদন প্রায় ৪ কোটি টনে গিয়ে পৌঁছবে বলে আশা করছেন কৃষিবিদরা। ধান উৎপাদন বৃদ্ধি পাওয়ায় খাদ্য আমদানি ক্রমান্বয়ে কমছে এবং দেশের বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে। বাংলাদেশ এখন ধান উৎপাদনে পৃথিবীতে চতুর্থ। হেক্টরপ্রতি ধান উৎপাদনে বৈশ্বিক গড়কে পেছনে ফেলতে সক্ষম হয়েছে বাংলাদেশ। তবে খাদ্য উৎপাদন, বিশেষত ধান উৎপাদন বৃদ্ধিতে ঈর্ষণীয় সাফল্য এলেও আত্মতুষ্টিতে ভোগার সুযোগ নেই। কারণ জনসংখ্যা যে হারে বাড়ছে, তাতে এক পর্যায়ে হয়তো উৎপাদন বাড়িয়েও চাহিদা পূরণ করা কঠিন হবে। সময় থাকতেই এ ব্যাপারে সতর্ক হওয়া দরকার